আরিয়ানকে রিহ্যাব সেন্টারে পাঠানোর জন্য শাহরুখকে পরামর্শ দিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

501
ariyan khan

News Desk, Mumbai: এই অল্প বয়সে মাদক নেওয়া কখনওই ভাল নয়। তাই মাদকাসক্ত আরিয়ানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তাকে কোনও রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টারে পাঠানোর জন্য শাহরুখ খানকে পরামর্শ দিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রামদাস আটওয়ালে। চলতি মাসের ৩ তারিখে গোয়াগামী প্রমোদতরী থেকে শাহরুখপুত্র আরিয়ানকে গ্রেফতার করেছে নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো বা এনসিবি। ২৩ বছরের তরুণ আরিয়ান বর্তমানে মুম্বইয়ের আর্থার রোড জেলে আছেন।

সোমবার সংবাদ সংস্থা এএনআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে কেন্দ্রীয় সামাজিক ন্যায় ও ক্ষমতায়ন মন্ত্রী আটওয়ালে বলেন, অল্প বয়সে নিয়মিত মাদক সেবন কখনওই ভাল নয়। আরিয়ানের বাবা শাহরুখ একজন বিখ্যাত মানুষ। তাই তাঁর ছেলের ভবিষ্যৎ অনেক উজ্জ্বল হওয়ার কথা। কিন্তু একরত্তি একটা ছেলে মাদক সেবন করছে। এতে ওর ভবিষ্যৎ খারাপ হবে। তাই আমি শাহরুখকে অনুরোধ করব, নেশা ছাড়ানোর জন্য তিনি যেন ছেলে আরিয়ানকে কোন রিহ্যাবিলিটেশন কেন্দ্রে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। সারাদেশে নেশা ছাড়ানোর অনেক রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টার আছে। যেখানে দু-এক মাস থাকলে আরিয়ান নিশ্চিতভাবেই মাদকাসক্তি কাটিয়ে উঠবে। একই সঙ্গে মন্ত্রী এদিন বলেন, মাদকাসক্তদের যাতে জেলে পাঠানো না হয় তার জন্য নতুন আইন করা দরকার। কারণ জেলে গেলে তাদের মাদকাসক্তি দূর নাও হতে পারে। কিন্তু রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টারে পাঠানো হলে মাদকাসক্তরা বেশিরভাগ সময়ই নেশা ছেড়ে দিয়ে সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসে।

আরিয়ানের গ্রেফতারি নিয়েও এদিন মুখ খুলেছেন মন্ত্রী। তিনি বলেছেন, আরিয়ান এখনও পর্যন্ত বার পাঁচেক জামিনের আর্জি জানিয়েছিলেন। কিন্তু প্রতিবারই তা খারিজ হয়ে গিয়েছে। আদালতের নির্দেশেই এটা স্পষ্ট যে, আরিয়ান প্রকৃতই মাদকাসক্ত বা সে সরাসরি মাদক কাণ্ডে জড়িত। তাকে গ্রেফতার করে এনসিবি কোনও বেআইনি বা অনৈতিক কাজ করেনি।

অন্যদিকে এনসিবির কার্যকলাপ নিয়ে প্রথম থেকেই তোপ দেগেছেন মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী নবাব মালিক। নবাবের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে আটওয়ালে এদিন বলেন, এনসিবি অফিসার সমীর ওয়াংখেড়ের চরিত্র হননের চেষ্টা চলছে। রাজ্যের মন্ত্রী নবাবকে আমি অনুরোধ করবো, কারও নামে অকারণে মিথ্যা অভিযোগ করবেন না। কারও নামে ভিত্তিহীন অভিযোগ করা কোনও বুদ্ধিমান মানুষের কাজ নয়। আইন আইনের পথে চলবে। তবে আমি বলতে পারি আরিয়ানের বয়স যথেষ্ট কম। তার ভবিষ্যতের কথা ভেবে শাহরুখের উচিত ছেলেকে অবিলম্বে কোনও রিহ্যাবিলিটেশন কেন্দ্রে পাঠিয়ে দিয়ে দেওয়া।