Gujarat: বাড়িভাড়া না পেয়ে দেড়শো কিলোমিটার পথ সাইকেলে আসা-যাওয়া তপসিলি শিক্ষকের

গুজরাতের এক স্কুল শিক্ষকের চাঞ্চল্যকর কাহিনী প্রকাশ্যে

426
Gujarat: House Denied To Scheduled Caste Teacher

News Desk, New Delhi: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সবসময় বলে থাকেন সবকা সাথ সবকা বিকাশ। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নিজের রাজ্য গুজরাতে সবার বিকাশ বা উন্নয়ন বাধা পাচ্ছে। সম্প্রতি গুজরাতের এক স্কুল শিক্ষকের চাঞ্চল্যকর কাহিনী প্রকাশ্যে এসেছে।

কানহাইয়ালাল বারাইয়া নামে ওই শিক্ষক বাল্মিকী সম্প্রদায় ভুক্ত। বর্তমানে তিনি চাকরি করেন রাজ্যের সুরেন্দ্রনগর জেলার এক স্কুলে। যে স্কুলে তিনি পড়ান সেই গ্রামে বাল্মিকী সম্প্রদায়ের থাকার কোন জায়গা নেই। তাই ওই স্কুল শিক্ষককে কেউ বাড়ি ভাড়া দিতে রাজি হয়নি। যে কারণে বাধ্য হয়ে ওই শিক্ষক প্রতিদিন সাইকেলে করে ১৫০ কিলোমিটার পথ আসা-যাওয়া করেন।

তপশিলি সম্প্রদায়ভুক্ত ওই শিক্ষকের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণের বিষয়টি অবশ্য মেনে নিয়েছে রাজ্যের ন্যায় ও ক্ষমতায়ন দফতর। সম্প্রতি ন্যায় ও ক্ষমতায়ন দফতর রাজ্যের শিক্ষা দফতরকে একটি চিঠি দিয়েছে। ওই চিঠিতে জানানো হয়েছে, তপসিলি জাতি ভুক্ত বলে ৫০ বছরের ওই শিক্ষককে চরম নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে। তাই ওই শিক্ষককে যত শীঘ্র সম্ভব বাড়ির কাছাকাছি কোনও স্কুলে বদলি করা হোক।

জানা গিয়েছে কানাইয়া লাল থাকেন সুরেন্দ্রনগর এর চুড়া তালুকের ছতরিওয়ালা গ্রামে। কানাহাইয়াকে সম্প্রতি বাড়ি থেকে ৭৫ কিলোমিটার দূরে নিনামা গ্রামের স্কুলে বদলি করা হয়েছে। ওই শিক্ষক জানিয়েছেন, বদলি হওয়ার পর তিনি প্রথমে স্কুল সংলগ্ন এলাকায় একটি ভাড়াবাড়ির চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু প্রথমেই তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয় তিনি কোন জাত ও ধর্মের লোক। কানহাইয়া জানান তিনি বাল্মিকী সম্প্রদায়ের লোক। তখনই তাঁকে মুখের উপর বলে দেওয়া হয় এই গ্রামে তিনি কোনও ঘরভাড়া পাবেন না।

স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্যরাও তাঁকে ওই একই কথা বলেন। এরপরই তিনি পুরো বিষয়টিই শিক্ষা দফতরকে জানিয়ে একটা সমাধানের উপায় বের করতে অনুরোধ করেন। শেষ পর্যন্ত কানাহাইয়ালালের আবেদন যত শীঘ্র সম্ভব খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু মোদির রাজ্য এবং আজকের অত্যাধুনিক বিজ্ঞানের যুগে দাঁড়িয়ে এ ধরনের সংস্কার অনেকেই অবাক হয়েছেন। একজন শিক্ষকের সঙ্গে এ ধরনের ব্যবহার আধুনিক সভ্যতার লজ্জা বলে অনেকেই মন্তব্য করেছেন।