High Court: পাওনা কেন বকেয়া? মমতার অস্বস্তি বাড়িয়ে আদালতের তলব

এখনও বকেয়া রয়েছে পাওনা৷ অভিযোগের তির রাজ্যের অর্থসচিব-সহ ৪ আধিকারিকেএ বিরুদ্ধে। তাঁদের ডেকে পাঠিয়েছে কলকাতার উচ্চ আদালত (High Court)। আগামী শুক্রবার দিতে হবে হাজিরা। অভিযুক্ত…

এখনও বকেয়া রয়েছে পাওনা৷ অভিযোগের তির রাজ্যের অর্থসচিব-সহ ৪ আধিকারিকেএ বিরুদ্ধে। তাঁদের ডেকে পাঠিয়েছে কলকাতার উচ্চ আদালত (High Court)। আগামী শুক্রবার দিতে হবে হাজিরা।

অভিযুক্ত প্রত্যেকের বিরুদ্ধে উঠেছে আদালত অবমাননার অভিযোগ। চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার দীর্ঘদিন পরেও পুরকর্মীর বকেয়া পাওনা-গন্ডা মেটানো হয়নি, এমনটাই অভিযোগ তাঁদের বিরুদ্ধে। রাজ্যের অর্থসচিব পুনিত যাদবের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলায় রুল ইস্যু হয়েছে বলে প্রকাশ সংবাদমাধ্যমে। অভিযোগ রয়েছে বহরমপুরের মহকুমা শাসক, বহরমপুর পুরসভা এগজিকিউটিভ অফিসার ও সেখানকার বর্তমান প্রশাসক বোর্ড প্রধানের বিরুদ্ধেও।

বকেয়া পাওনা না পেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন এক অবসরপ্রাপ্ত কর্মী স্ত্রী ডলি সরকার। গত ২৮ অক্টোবর সমস্ত পাওনা-গন্ডা মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল কোর্টের পক্ষ থেকে। কিন্তু তারপরেও পাওনা দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। ফের বিচারপতির দরবারে যান ডলি সরকার। করেন আদালত অবমাননার মামলা। তারই প্রেক্ষিতে কলকাতা হাইকোর্টের এই রুল ইস্যু।

সাফাই দেওয়া হয়েছে বহরমপুর পুরসভার তরফে৷ জানানো হয়েছে, কর্মীদের কাছে ৮-১০ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে। কিন্তু তা মেটানোর সামর্থ্য এখন পুরসভার নেই। রাজ্য সরকারের কাছে আর্থিক সাহায্যের আবেদন জানিয়েছে স্থানীয় এই প্রশাসন। বহরপুর ছাড়াও রাজ্যের একাধিক জায়গায় বকেয়া সম্পর্কিত এমন সমস্যা রয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। এমতাবস্থায় আদালতের এই পদক্ষেপে নড়েচড়ে বসেছেন রাজ্যের একাংশ। অর্থসচিবকেও দিতে হবে হাজিরা৷ বিচারপতি রাজা শেখর মন্থর এজলাসে আগামী দিনে কী হয়, এখন সে দিকেই তাকিয়ে সকলে।