ভারতীয় বায়ুসেনা পেল MR-SAM সিস্টেম, চোখের পলকে ধ্বংস হবে শত্রুর বিমান

683
air defence missile (MRSAM) System was handed to Indian Air Force

নিউজ ডেস্ক: চিন এবং পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের বিরোধ দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। তার উপর নতুন সমস্যা আফিগানিস্তানে তালিবানি জঙ্গি সরকার৷ ঠিক এই সময়কালে ভারতীয় স্থল-বিমান-নৌবাহিনী তাদের প্রস্তুতি জোরদার করছে। বৃহস্পতিবার ভারতীয় সেনার শক্তিবৃদ্ধির আরও একটি সুসংবাদ সামনে এল৷ ভারতের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আরও শক্তিশালী করার জন্য মাঝারি পাল্লার ভূমি থেকে আকাশে ক্ষেপণাস্ত্রটি ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে তুলে দেওয়া হল৷ এদিন আনুষ্ঠানিকভাবে রাজস্থানে ভারতীয় বিমান বাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করা হল৷ এই কর্মসূচিতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংও উপস্থিত ছিলেন।

কর্মসূচিতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, এমআর-স্যাম প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাটি জয়সলমিরে বিমান বাহিনীর ২২০৪ স্কোয়াড্রনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। দেশীয় প্রতিরক্ষা প্রযুক্তিতে আত্মনির্ভরতার দিকে এটি একটি বড় পদক্ষেপ। তিনি আরও বলেন, বৈশ্বিক দৃশ্যপট দ্রুত এবং অপ্রত্যাশিতভাবে পরিবর্তিত হচ্ছে৷ যার ফলে বিভিন্ন দেশের মধ্যে সমীকরণ পরিবর্তন হচ্ছে। দক্ষিণ চীন সাগর হোক, ভারত মহাসাগর অঞ্চল হোক, ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগর বা মধ্য এশিয়া হোক, সর্বত্রই অনিশ্চয়তা দেখা যায়। সম্প্রতি আফগানিস্তানে যা ঘটেছে তার সর্বশেষ উদাহরণ।

বায়ুসেনার এই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাটির পরিসীমা ৭০ কিলোমিটার। এমন পরিস্থিতিতে এই সিস্টেম এই রেঞ্জের মধ্যে আসা সমস্ত বিমান, হেলিকপ্টার এবং মিসাইলকে চোখের নিমিষে ধ্বংস করতে পারবে৷ রাজস্থানের জয়সলমির জেলা পাকিস্তান সীমান্তে৷ যার কারণে এই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সেখানে খুবই কার্যকর প্রমাণিত হবে। এটি প্রস্তুত করতে ইসরায়েল অ্যারোস্পেস ইন্ডাস্ট্রিজ (আইএআই) এবং ভারতীয় প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থার (ডিআরডিও) মধ্যে এক দশক আগে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল।

একই সময়ে ভারতীয় বিমানবাহিনী রাজস্থানের বারমেরের কাছে এনএইচ -৯২৫ এ-তে সত্তা-গান্ধব বিভাগে জরুরি অবতরণের জন্য রানওয়ে প্রস্তুত করেছে। এটি কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণ মন্ত্রী নীতিন গডকরি এবং রাজনাথ সিং যৌথভাবে উদ্বোধন করেন। IAF- এর C-১৩০ জে সুপার হারকিউলিস পরিবহণ বিমান উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সময় মহাসড়কে অবতরণ করেছিল। যেখানে রাজনাথ সিং, নীতিন গডকরি এবং এয়ার চিফ মার্শাল আরকেএস ভাদৌরিয়া হাজির ছিলেন৷