ভারত ও বাংলাদেশে সন্ত্রাস জাল ছড়ানো JMB প্রধান সালাউদ্দিন বেপাত্তা

343
Militant leader Salehin yet to be caught

বিশেষ প্রতিবেদন: একেবারে কর্পূরের মতো উবে গিয়েছে যেন। কোনও সূত্রই মিলছে না ভারত ও বাংলাদেশে জঙ্গি জাল ছড়ানো জেএমবি (JMB) প্রধান সালাউদ্দিন সালেহীনের। ভারতে সংগঠনটির নাম জেএমআই (JMI), তাদের একাধিক সদস্য ধরা পড়েছে। সম্প্রতি তিন জঙ্গি ধরা পড়ল কলকাতায়।

সালাউদ্দিন নিখোঁজ ২০১৪ সালের বর্ধমানের খাগড়াগড় বিস্ফোরণ ঘটনার পর থেকে। রাজ্যে টানা সাড়ে তিন দশকের বাম শাসনের অবসান হওয়ার পর তৃণমূল কংগ্রেসের প্রথম দফার শাসনে খাগড়াগড় বিস্ফোরণ (এখন পূর্ব বর্ধমান জেলার অংশ) ছিল তুমুল আলোচিত। পশ্চিমবঙ্গের জমি ব্যবহার করে বাংলাদেশে নাশকতা ঘটানোর পরিকল্পনা করে বাংলাদেশি জঙ্গি কমান্ডার সালাউদ্দিন সালেহীন।

সালাউদ্দিন বাংলাদেশে থাকতেই জামাত উল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি) সংগঠনে চিড় ধরেছিল। তৈরি হয় নব্য জেএমবি। এই সংগঠনের নেতৃত্বে আসে তামিম চৌধুরী। বাংলাদেশ শক্তি হারিয়ে সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে পুরনো জেএমবি ভারতের মাটি বেছে নেয়। তৈরি হয় জামাত উল মুজাহিদিন ইন্ডিয়া ইন্ডি(জেএমআই)।

বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা সালাহউদ্দিন ধরা পড়ে। মামলা চলাকালীন ২০১৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি তাকে পুলিশ ভ্যান থেকেই ছিনিয়ে নিয়েছিল জঙ্গিরা। বাংলাদেশ সরকারের তথ্য, ময়মনসিংহে ঘটে যাওয়া সেই ঘটনার পরেই সালাউদ্দিন ভারতে ঢুকে আত্মগোপন করে। পালিয়ে যাওয়ার আটটা মাসের মধ্যে ২ অক্টোবর হয়েছিল খাগড়াগড় বিস্ফোরণ। তদন্তে উঠে এসেছিল পলাতক সালাহউদ্দিনের নাম।

জেএমবি/জেএমআই সংগঠনের প্রধান সালাউদ্দিন সালেহীন সম্পর্কে গেয়েন্দা রিপোর্টে বলা হয়েছে, এই মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি নেতা নেপাল হয়ে পাকিস্তান গিয়েছিল। এরপর আর তার কোনও খোঁজ নেই। গত কয়েক বছরে খাগড়াগড় বিস্ফোরণের প্রায় সব জঙ্গি নেতা ভারত ও বাংলাদেশে ধৃত। তামিম চৌধুরী সহ নব্য জেএমবি সংগঠনের নেতারা অনেকেই খতম। কিন্তু সালাউদ্দিন বেপাত্তা।

পশ্চিমবঙ্গ ও অসমে বারবার জেএমবি জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক শক্তিশালী। খাস কলকাতায় জেএমবি জঙ্গিরা ধরা পড়ার পর সবদিক খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা। কলকাতায় জেএমবি তথা জেএমআই জঙ্গিরা ধরা পড়ার পাশাপাশি বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জে সংগঠনটির দুটি ডেরা ধংস করেছে সে দেশের জঙ্গি দমন শাখা। দুই দেশে ধরা পড়া জেএমবি জঙ্গিদের কাছে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণে সালাউদ্দিন সালেহীনের বিষয়ে সূত্র খুঁজছেন গোয়েন্দারা।