I-League: কোভিড-১৯ সংক্রমণের জেরে আই লিগ পিছিয়ে গেল

604
I-League

কোভিড -১৯’র নতুন প্রজাতি ওমিক্রনের থাবা এবার আই লিগেও (I-League)। কলকাতায় ২০২১-২২ মরসুমে আই-লিগ টুর্নামেন্ট আয়োজিত হচ্ছে। কিন্তু ওমিক্রন ভেরিয়েন্টের বাড়বাড়ন্তের কারণে রাজ্যে সোমবার থেকে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত আংশিক লকডাউন সিদ্ধান্ত নিয়েছে পশ্চিম বাংলা সরকার।রাজ্য সরকারের এমন নির্দেশ আসার পড়েই আই লিগ কমিটি নড়েচড়ে বসে।

এই প্রসঙ্গে সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনে’র(AIFF) সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট সুব্রত দত্ত জানিয়েছেন, সোমবার AIFF লীগ কমিটির সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে আই লিগ সাময়িক ভাবে স্থগিত করার।

আই-লিগ ২০২১-২২ সাময়িক স্থগিতের আগে অংশগ্রহণকারী ক্লাবের প্রতিনিধিদের সাথে একপ্রস্থ আলোচনা করা হয়েছিল ভিডিও কনফারেন্সিং’র মাধ্যমে। ওই ভিডিও কনফারেন্সিং’র সময়ে উপস্থিত ছিলেন AIFF স্পোর্টস মেডিকেল কমিটির সদস্য চিকিৎসক হর্ষ মহাজন,তিনিও এই ইস্যুতে নিজের মতামত রাখেন।

লিগ কমিটি, চিকিৎসক হর্ষ মহাজনের পরামর্শ অনুসারে সমস্ত আই লিগ অংশগ্রহণকারী ক্লাবের ঐকমত্যের ভিত্তিতে, কলকাতায় চলতি আই-লীগ ২০২১-২২ কমপক্ষে ৬ সপ্তাহের জন্য স্থগিত করার সিদ্ধান্তকে অনুমোদন করে। পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে ৪ সপ্তাহ পর পর্যালোচনা সভা করবে লীগ কমিটি।

পশ্চিম বাংলায় সোমবার থেকে আংশিক লকডাউন বিধিনিষেধ কার্যকর হয়েছে,১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। এমন আবহে AIFF স্পোর্টস মেডিকেল কমিটির সদস্য চিকিৎসক হর্ষ মহাজন বলেন,”ওমিক্রন ভেরিয়েন্ট খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে কিন্তু খুব দ্রুত নিচে নেমে আসে। আমাদের সরকারী নিয়মকানুন এবং নীতিগুলিও বিবেচনা করতে হবে”।

AIFF সূত্রে খবর,বায়ো বাবলের প্রোটোকল ৭ জানুয়ারী পর্যন্ত চলবে, কারণ ৫ জানুয়ারী সমস্ত দলকে আবার পরীক্ষা করা হবে এবং একবার নেতিবাচক পরীক্ষা করা হলে দলগুলি তাদের নিজ নিজ গন্তব্যে ফিরে যেতে পারবে। ইতিমধ্যেই বিচ্ছিন্ন থাকা টিম হোটেলগুলিতে ইতিবাচক পরীক্ষা করা খেলোয়াড় এবং কর্মকর্তাদের চিকিৎসা করা হবে এবং স্বাস্থ্যের পরিস্থিতি অনুসারে কলকাতায় কোয়ারেন্টাইন করা হবে এবং নেতিবাচক পরীক্ষার পরে তাদের বায়ো বাবোল ছেড়ে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে।