7.3 C
London
Monday, December 5, 2022
Homeস্পোর্টস-স্পটCourtney Walsh: ভারতীয় উপমহাদেশের অ্যাওয়ে সিরিজে রুপকথার নায়ক

Latest Posts

Courtney Walsh: ভারতীয় উপমহাদেশের অ্যাওয়ে সিরিজে রুপকথার নায়ক

- Advertisement -

Sports desk: ইতিহাসে কোনো ফাস্ট বোলার কোটনি ওয়ালশের (Courtney Walsh) মতো অ্যাওয়ে সিরিজে উইকেট পাননি। ২৭৪ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন গ্লেন ম্যাকগ্রা। জেমস অ্যান্ডারসন ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল দ্রুত বোলার-এই তালিকায় ষষ্ঠ স্থানে রয়েছেন, তার মাত্র 36% ডিসমিসাল হোম থেকে এসেছে।

200 টিরও বেশি উইকেট নেওয়া দশজন দ্রুতগতির বোলারদের মধ্যে ওয়ালশের গড় 25.03 এবং স্ট্রাইক রেট 57 মার্শাল, অ্যামব্রোস, হ্যাডলি এবং ম্যাকগ্রার চেয়ে খারাপ, তবে ওয়ালশ ওয়াসিম আক্রম এবং ওয়াকার ইউনিসের সাথে আছেন এবং সাম্প্রতিক সময়ে থেকে এগিয়ে অ্যান্ডারসন এবং জাহির খান থেকে।

- Advertisement -

এশিয়ায় মহাদেশ ঐতিহ্যগতভাবে দ্রুতগতির বোলারদের জন্য সবচেয়ে কঠিন ছিল – ওয়ালশ সমস্ত তর্ককে ব্যাকফ্রুটে ঠেলে দিয়ে সেরা সফরকারী ফাস্ট বোলার ছিলেন; তার 20.53 গড় (76 উইকেট) এবং 45 এর স্ট্রাইক রেট ওয়েস হলের সংখ্যার চেয়ে (সামান্য) খারাপ, মহাদেশের পিচে 54 উইকেট নিয়েছিলেন,এমন সময়ে যখন অনাবৃত পিচ ঢেকে রাখা হতো না কভার দিয়ে।

মার্শাল এবং ডেল স্টেইন – যাঁরা উভয়েই এশিয়াতে আধিপত্য বিস্তার করেছিলেন, এবং যাদের রেকর্ডে তাদের মুকুটে রত্ন রয়েছে – ওয়ালশের তুলনায় এশিয়ার গড় উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি, যদিও স্টেইনের স্ট্রাইক রেট ভাল।
কোটনি ওয়ালশকে বিশেষ করে ভারত ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দুর্ধর্ষ ফর্মে দেখা গিয়ছিলো। তার কেরিয়ারের বেশিরভাগ সময় এশিয়ার সেরা দুই দলের বিরুদ্ধে (ভারত -পাকিস্তান) দেশে ২৯টি ইনিংসে চার বা তার বেশি উইকেট নিয়েছিলেন।

কোটনি ওয়ালশ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের সোনালি সময়ের প্যাকের মাঝখানে অনেকটা জায়গা জুড়ে, সমসাময়িক অন্যান্য দ্রুতগতির বোলারদের

স্পষ্ট পারফরম্যান্সের পার্থক্যের দিক দিয়ে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়ালশের বাইশ গজের সার্ভিস কেরিয়ারে এশিয়াতে জিতেছে এমন চারটে টেস্ট ম্যাচ ( সাতটি হেরেছে এবং ছয়টি ড্র করেছে), এই সময়ে ওয়ালশ 16.04 গড়ে 21 উইকেট শুধুমাত্র এশিয়া মহাদেশের পিচে।

ক্যারিবিয়ানদের জয়ের ক্ষেত্রে তার সেরা পারফরম্যান্স ১৯৮৬ লাহোর টেস্ট ম্যাচ, যখন ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে 7 উইকেট ওই সময়ে এককথায় দুরন্ত পাকিস্তান দলকে উড়িয়ে দিয়েছিল এবং 1987 সালে দিল্লি টেস্ট, যেখানে ওয়ালশ দ্বিতীয় ইনিংসে 5 উইকেট নিয়ে একটি সিরিজ নির্ধারণ জয়ের অসামান্য নজির স্থাপন করেছিলেন।

1994 সালে মোহালিতে তার 5 উইকেট শিকার এবং প্রথম ইনিংসে ভারতের হয়ে শতরান করা মনোজ প্রভাকরের নাক ভাঙতে ওয়ালশের দুর্ধর্ষ লিফটার ক্রিকেটের ইতিহাসে ভয়ঙ্কর সত্য সঙ্গে পড়তে পড়তে উত্তেজনার মোড়কে নির্মম বাস্তব।

এছাড়াও 1980 সময়ে ফিরে যাওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের দীর্ঘ অপরাজিত সিরিজের ধারাটি ভাঙতে বাধা দেয় কোটনি ওয়ালশ। পরের বছর অস্ট্রেলিয়া অবশেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অপরাজিত থাকার বাধা টপকে ক্যারিবিয়ানদের ক্রিকেটের বাইশ গজে দাপুটে রাজত্বর সমাপ্তি ঘটায়।

এমন এক যুগ সন্ধিক্ষণে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের দাপুটে পতনের মাঝের সময়েও কোটনি ওয়ালশ শুধুমাত্র নিজের খেলাকে তুলে ধরেন এমন এক আঙ্গিকে, যেখানে ক্যারিবিয়ান ক্রিকেট সাম্রাজ্যের চরম পতন বাইশ গজে একপ্রকার সময়ের অপেক্ষা ছাড়া আর কিছুই ছিল না।

- Advertisement -

Video News

Top News Headlines

Latest Posts

Don't Miss