G-7 Summit: তালিবানের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করবে বিশ্বের ‘সুপার পাওয়ার’ দেশ

846
G-7 Summit

বিশেষ প্রতিবেদন: আফগানিস্তান দখলের পর তালিবানের ভবিষ্যৎ কী হবে? তাদের উপর অনেক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে? নাকি বিশ্বের পরাশক্তি দেশগুলো এই তালিবান সরকারকে স্বীকৃতি দেবে? সবটাই নির্ভর করবে আজ, মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া G-7 বৈঠকের অবস্থানের উপর। আমেরিকা এবং তার মিত্ররা এই বড় সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

তালিবানরা যেভাবে আফগানিস্তান দখল করেছে, তাতে অনেক দেশ ক্ষুব্ধ। জি-7 বৈঠকে হয়তো বিশ্ব থেকে তালিবানকে বিচ্ছিন্ন করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে সূত্রের মতে, জো বাইডেন আফগানিস্তানে ৩১ আগস্টের পরেও কিছু সময়ের জন্য আমেরিকান এবং ন্যাটো দেশের বাহিনী ফেরত আনার বন্ধ করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।

আন্তর্জাতিক নিয়ম মানার ক্ষেত্রে সকলে সহমত হতে পারে
জি-7 দেশের মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, ইতালি, ফ্রান্স, জার্মানি, কানাডা এবং জাপান। এটা মনে করা হচ্ছে, সমস্ত দেশ একত্রে বেশ কয়েকটি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে তালিবানকে স্বীকৃতি দেওয়ার মনোভাব গ্রহণ করবে। এক ইউরোপীয় কূটনীতিক বলছেন, জি-7 দেশগুলো আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনে চলার এবং মহিলাদের তাদের অধিকার দেওয়ার শর্ত তালিবানকে দিতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত কারেন পিয়ার্স বলেছেন, বরিস জনসন বৈঠকে কিছু সমাধান নিয়ে আসতে পারেন। রাষ্ট্রসংঘে মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এবং রাষ্ট্রসংঘে মহাসচিব জেন স্টলটেনবার্গও বৈঠকে যোগ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

আজ অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া G-7 ভার্চুয়াল বৈঠকের আয়োজক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডে৷ জি-7 এর এই সভা আহ্বানের দাবি ব্রিটেনের পক্ষ থেকে করা হয়েছে। হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন ​​সাকি তার বিবৃতিতে বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জি-7 দেশের নেতাদের সঙ্গে ২৪ অগস্ট ভার্চুয়াল বৈঠক করতে পারেন। এই নেতারা আফগানিস্তানের ব্যাপারে সমন্বয় বাড়াতে এবং পশ্চিমের দেশগুলিকে সমর্থনকারী আফগানদের তাড়িয়ে দিতে আলোচনা করবেন। সাকি বলেন, জি-7 নেতারা আফগান শরণার্থীদের মানবিক সহায়তা প্রদানের পরিকল্পনা নিয়েও আলোচনা করবেন।

বরিস জনসনের বক্তব্য
এর আগে টুইটারে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছিলেন, ‘আফগান জনগণকে নিরাপত্তা দিতে, মানবিক সংকট রোধ করতে এবং গত ২০ বছরের কঠোর পরিশ্রমকে সুরক্ষিত করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আফগান জনগণকে সমর্থন করার জন্য একসঙ্গে কাজ করতে হবে।’ এই বছর জি-7 দেশগুলোর নেতৃত্ব দিচ্ছে ব্রিটেন। এই গ্রুপে রয়েছে ব্রিটেন, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান এবং যুক্তরাষ্ট্র।

আফগান নীতি সম্পর্কে অভিন্ন পদ্ধতির প্রয়োজন
হোয়াইট হাউসের মতে, জো বাইডেন এবং বরিস জনসন জি-7 এর ভার্চুয়াল বৈঠকের কথাও বলেছিলেন৷ দুই নেতা আফগানিস্তানের পরিস্থিতি মোকাবিলায় পারস্পরিক সহযোগিতা এবং অভিন্ন পদ্ধতির বিষয়ে আলোচনা করেন। আফগানিস্তানের নীতি নিয়ে একসঙ্গে কাজ করার ওপরও জোর দিয়েছেন। উল্লেখযোগ্যভাবে, আফগানিস্তান থেকে আমেরিকান বাহিনী প্রত্যাহারের জন্য বাইডেন প্রশাসন তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছে৷