‌ভবানীপুরে মমতার মনোনয়ন, গোরু খোঁজার মতো প্রার্থী খুঁজছে BJP

437
Mamata Banerjee

নিউজ ডেস্ক: সরকার পক্ষের মনোনয়ন পেশ। বিরোধীপক্ষ গোরু খোঁজার মতো প্রার্থী খুঁজছে। তৃতীয়পক্ষ শূন্য সিপিআইএম পর্যন্ত প্রার্থী দিয়েছে। সব মিলে শুক্রবার উপনির্বাচনের ঢাকে কাঠি পড়ছে।

ভবানীপুর কেন্দ্রে ফের প্রার্থী হতে মনোনয়ন জমা দেবেন মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রাক্তন বিধায়ক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রীর মনোনয়ন পেশ নিয়ে রাজনৈতিক মহল সরগরম।

সরকারে থাকা তৃণমূল এগিয়ে। নির্বাচনে এই কেন্দ্র টিএমসির দখলে গিয়েছে। তবে নন্দীগ্রামে মুখ্যমন্ত্রী হেরে যান। তাঁর দল জিতে যায় রাজ্যে। তিনি প্রাক্তন বিধায়ক হয়েই কুর্সিতে বসেন। নিয়মানুসারে ছয়।মাসের মধ্যে মমতা কে বিধায়ক হিসেবে নির্বাচিত হতে হবে। ইতিমধ্যে দলনেত্রীকে বিধানসভান নিয়ে যেতে সেফ আসন হিসেবে ভবানীপুরকেই বেছে নেয় টিএমসি। জয়ী বিধায়ক শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় বিধায়কপদ ত্যাগ করেন।

এই কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেস দলনেত্রীর জয়ের বিষয়ে আশাবাদী। শুধু মার্জিন বাড়িয়ে নেওয়ার জন্য নেতা কর্মীরা ঝাঁপ মারতে তৈরি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেরকমই নির্দেশ দিয়েছেন।

তবে বিরোধী দল বিজেপির অন্দরে আলোড়ন। মমতার বিরুদ্ধে নন্দীগ্রামে ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি জিতে এখন বিরোধী নেতা। এবার কে দাঁড়াবে ভবানীপুরে, হন্যে হয়ে মুখ খুঁজছে বিরোধী দল।

বিধানসভাবিধায়ক ভোটে নজিরবিহীনভাবে ভাবে শূন্য হয়ে গিয়েছে বামফ্রন্ট। তবে তাদের তরফে মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী হয়েছেন তরুন আইনজীবী শ্রীজীব বিশ্বাস।

ভবানীপুর কেন্দ্র আসন্ন উপনির্বাচনের চরম কৌতূহলের কেন্দ্র। এখানে লড়াই হচ্ছে বিধানসভায় আশাহত তিন পক্ষের মধ্যে। প্রথম পক্ষ তৃণমূলের নেত্রী যিনি নন্দীগ্রাম আন্দোলনের মুখ তিনি নন্দীগ্রামেই পরাজিত হয়ে চরম ‘বেদনাহত’।

দ্বিতীয়পক্ষ আশাহত বিজেপি যারা মনে করেছিল রাজ্যে প্রথমবার সরকার গড়বে। এখন দলত্যাগী ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ক্রমাগত বিধায়ক সংখ্যা কমছে তাদের।

তৃতীয়পক্ষ শূন্য বামেরা সব হারিয়ে ভাঁড়ে মা ভবানীর মতো পরিস্থিতি। ভবানীপুরে ফের ভোট হবে।