MPs suspend: বাদলের অশান্তির জেরে শীতে সাসপেন্ড ১২ সাংসদ

673
parlament house

নিউজ ডেস্ক, নয়াদিল্লি: দেশের সংসদীয় ইতিহাসে তৈরি হল এক নতুন রেকর্ড। বাদল অধিবেশনে (Winter Season ) গন্ডগোল, অশান্তি পাকানোর ঘটনায় শীতকালীন অধিবেশনে সাসপেন্ড (suspend) করা হল ১২ জন সাংসদকে।

সাসপেন্ড হওয়া সাংসদদের মধ্যে দুজন তৃণমূল কংগ্রেসের (TMC)। এই দুই সাংসদ হলেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ দোলা সেন (Dola Sen) এবং শান্তা ছেত্রী (Shanta Chatri) । সাসপেন্ড হওয়া অপর ১০ জন সাংসদের মধ্যে ৬ জন কংগ্রেসের, সিপিএম ও সিপিআইয়ের একজন করে এবং দুজন শিবসেনার।

উল্লেখ্য, বাদল অধিবেশনের শেষ দিনে পেগাসাস ইস্যুতে উত্তাল হয়েছিল রাজ্যসভা। সভার ওয়েলে নেমে এসে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন বিরোধীরা। মোদি সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দেওয়ার পাশাপাশি তাঁরা সংসদের বিভিন্ন নথিপত্র ছিঁড়ে ফেলে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন তাঁরা। ওই ঘটনায় সরকার পক্ষ বিরোধী সাংসদদের শাস্তির দাবি তুলেছিল। অধিবেশনের প্রথম দিনে অভিযুক্ত ১২ জন সাংসদের শাস্তির দাবিতে একটি প্রস্তাব আনে সরকার পক্ষ। সেই দাবি মেনে নিয়েই ১২ জন সাংসদকে শীতকালীন অধিবেশন থেকে সাসপেন্ড করার সিদ্ধান্ত নেন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডু। স্বাভাবিকভাবেই এই ১২ জন সাংসদ আর শীতকালীন অধিবেশনে কোনও বিতর্কে অংশ নিতে পারবেন না।

বিরোধী সাংসদদের সাসপেন্ড হওয়ার ঘটনা একেবারেই নতুন কিছু নয়। এর আগেও বাদল অধিবেশনে বিরোধী সাংসদদের দমন করতে সাসপেনশনকেই হাতিয়ার করেছিল মোদি সরকার। কিন্তু পূর্ববর্তী অধিবেশনের অশান্তির জেরে চলতি অধিবেশনে সাংসদদের সাসপেন্ড হওয়ার ঘটনা রাজনৈতিক মহলের কাছে নজিরবিহীন বলা চলে। স্বাভাবিকভাবেই সরকারের এদিনের সিদ্ধান্তকে অগণতান্ত্রিক ও অনৈতিক বলে দাবি করেছে বিরোধীরা। সরকারপক্ষের এই সিদ্ধান্তের কড়া নিন্দা করে তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায় বলেছেন, মোদি সরকার নিজেদের ইচ্ছামত সংসদ চালাচ্ছে। যদি আমাদের কোথাও কোনও ভুল হয়ে থাকে তবে তার ভিডিও প্রকাশ করুক কেন্দ্র।

যাদের বিরুদ্ধে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা নেওয়া হল তাদের বক্তব্য জানানোর কোনও সুযোগই দেওয়া হয়নি। এই প্রক্রিয়া অসাংবিধানিক ও অগণতান্ত্রিক। একইসঙ্গে সুখেন্দু শেখর প্রশ্ন তোলেন, সংসদ ভবনে যদি সাংসদদের গলার আওয়াজ শোনা না যায় তাহলে সেটা কোথায় শোনা যাবে? অন্যদিকে সাসপেন্ড হওয়া সাংসদ দোলা বলেন, যারা সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলেছে বেছে বেছে তাদেরই সভা থেকে সাসপেন্ড করেছে মোদি সরকার।