Bangladesh: ‘মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন খালেদা জিয়া, বিএনপির দাবি, গুজব ছড়াচ্ছে দ্রুত

499
khaleda zia

News Desk: প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার শারীরিক পরিস্থিতি নিয়ে সোশ্যাল সাইটে অত্যুৎসাহী বিএনপি সমর্থকরা লাইভ শুরু করেছেন ঢাকার বসুন্ধরা এভার কেয়ার হাসপাতালের সামনে থেকে। ক্রমে ভিড় বাড়তে শুরু করেছে। বর্ষীয়ান খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে গিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য দাবি জেরালো হচ্ছে। গুজব ও বিএনপির উগ্র বিক্ষোভ আঁচ করেই বাংলাদেশ (Bangladesh) জুড়ে পুলিশ, গোয়েন্দা বিভাগ, ব়্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ বিভাগের সব ছুটি বাতিল।

কেমন আছেন বাংলাদেশের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি দলের প্রধান নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ? তাঁর দল বিএনপির দাবি নেত্রী সংকটজনক। তাঁকে উন্নত চিকিৎসা না দিয়ে সরিয়ে দিতে চাইছে আওয়ামী লীগের সরকার। বিএনপির এক মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর দাবি, বেগম খালেদা জিয়া হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন।

খালেদা জিয়াকে দ্রুত মুক্তি ও বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে ঢাকা জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে ঢাকা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হয়। ছিলেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায়চৌধুরী সহ অন্যান্য নেতৃত্ব।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসকরা নাম প্রকাশ না করার অনুরোধে জানান, উনি অসুস্থ তবে পরিস্থিতি গত দু দিনের তুলনায় খানিকটা স্থিতিশীল। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর আরও ভালো চিকিৎসার দরকার।

খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতার ভুয়ো খবর রটিয়ে যে কোনও সময় বাংলাদেশ জুড়ে হিংসাত্মক আন্দোলন চালাতে পারে অন্যতম বিরোধী দল বিএনপি। এমনই আশঙ্কা করছে শাসক দল আওয়ামী লীগ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বাংলাদেশ সরকার পুলিশ বিভাগের সব ছুটি বাতিল করেছে। বুধবার সকাল থেকে ঢাকা সহ মোট ৮টি বিভাগের সর্বত্র ব্যাপক পুলিশ ও গোয়েন্দা মোতায়েন করা হয়েছে।

BD-Police

খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসা করানোর জন্য অনুমতি আদায়ের দাহিবে বিএনপি আগেই বিক্ষোভ করেছে। নাটোরের পরিস্থিতি ছিল অগ্নিগর্ভ। বিশৃংখলা নিয়ন্ত্রণে পুলিশ গুলি চালায়। রাবার বুলেটে অনেকে জখম হন। জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের তকমা না থাকলেও বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে বিএনপি চিহ্নিত। আর সংসদে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি রংপুর সহ কিছু নির্দিষ্ট এলাকায় সীমাবদ্ধ। বি়এনপির অভিযোগ, খালেদা জিয়াকে নিষ্ক্রিয় করে রাখলে আওয়ামী লীগ নিরাপদ থাকবে। সেই কারণে তাঁর সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে না।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, যতটুকু সরকারের এক্তিয়ারভুক্ত ততটাই করা হচ্ছে। দুর্নীতির মামলায় উনি জেলে ছিলেন, তাঁকে মানবিকতার কারণে জেল থেকে রেহাই দিয়েছে আদালত। তবে বিদেশে যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা আছে। সরকার আইন মেনে চলছে। অভিযোগ, ক্ষমতায় থাকাকালীন তিনি তো বিরোধী নেতাদের হাসপাতালের ব্যবস্থাতেও হস্তক্ষেপ করতেন।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও জিয়া অরফানেজ এই দুটি সংস্থার আর্থিক দুর্নীতির মামলায় জেলে ছিলেন খালেদা জিয়া। কোভিড পরিস্থিতি ও তাঁর অসুস্থতার কারণে জেল থেকে বাড়িতে পাঠানো হয় বেগম জিয়াকে। তিনি কোভিড আক্রান্ত হন। এর পর থেকে বারবার অসুস্থ হয়ে পড়ছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। গত কয়েকদিন ধরে তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।