""
Friday, October 7, 2022
Homeদেশের দশদিকশক্তি বাড়াতে নৌবাহিনীর হাতে এল অত্যাধুনিক সাবমেরিন INS Vela

Latest Posts

শক্তি বাড়াতে নৌবাহিনীর হাতে এল অত্যাধুনিক সাবমেরিন INS Vela

- Advertisement -

Submarine INS Vela commissioned
নিউজ ডেস্ক: দক্ষিণ চিন সাগরে (south china sea) চিনের নৌসেনাকে টক্কর দিতে ক্রমশই শক্তিশালী হচ্ছে ভারতীয় নৌসেনা (indian navy)। বাহিনীর শক্তি বাড়াতে এবার নৌসেনায় যুক্ত হল স্করপিওন জাতীয় সাবমেরিন আইএনএস-ভেলা (ins-vela)। দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি এই সাবমেরিন বৃহস্পতিবার ভারতীয় নৌসেনার হাতে তুলে দেওয়া হল। মাজগাঁও শিপ বিল্ডার্স লিমিটেড (mazgaon ship builders) এই রণতরীটি তৈরি করেছে। এই নিয়ে স্করপিওন গোত্রের চতুর্থ সাবমেরিনটি নৌসেনার হাতে এল। ভারত ও ফ্রান্সের যৌথ অংশীদারিত্বের অংশ হিসেবেই এই সাবমেরিনটি নির্মাণ করা হয়েছে।

এই অত্যাধুনিক সাবমেরিনটি নৌসেনা হাতে পাওয়ায় তাদের শক্তি যে অনেকটাই বাড়ল তা না বললেও চলে। এই সাবমেরিনে রয়েছে সি-৩০৩ অ্যান্টি টর্পেডো কাউন্টারমেসার সিস্টেম। এই অত্যাধুনিক সাবমেরিনটির ১৮টি টর্পেডো বহন করার ক্ষমতা রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে জাহাজ ধ্বংসকারী ক্ষেপণাস্ত্র বহনের দক্ষতা। এই অত্যাধুনিক সাবমেরিনে আটজন নৌসেনা অফিসার ও ৩৫ জন সেনা একই সঙ্গে থাকতে পারবেন।

- Advertisement -

Submarine INS Vela commissioned

বৃহস্পতিবার মুম্বইয়ে নৌসেনাপ্রধান অ্যাডমিরাল করমবির সিংয়ের উপস্থিতিতে মুম্বইয়ের সেনাবন্দরে নৌসেনার হাতে এই সাবমেরিনটি তুলে দেওয়া হয়। গত কয়েক মাস ধরে ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় চিনের নৌশক্তি ক্রমশই বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে ভারতীয় নৌসেনার হাতে এই অত্যাধুনিক সাবমেরিন আইএনএস-ভেলার অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিতভাবেই বেজিংকে উদ্বেগে রাখবে।

নৌ সেনাপ্রধান করমবীর সিং এদিন বলেন, চিন ও পাকিস্তানের মধ্যে যে কৌশলগত সমঝোতা হয়েছে সে বিষয়টি আমরা নজর রাখছি। নৌ সেনাপ্রধান এদিন স্পষ্ট বুঝিয়ে দিয়েছেন, চিন ও পাকিস্তান যতই তাদের শক্তি বাড়ানোর চেষ্টা করুক না কেন ভারতও পিছিয়ে নেই। বরং জলপথে ভারতকে আক্রমণ করার কোনও ধরনের চেষ্টা হলে তা ব্যর্থ করার জন্য নৌসেনা প্রস্তুত আছে। উল্লেখ্য, ভারতীয় নৌসেনায় ২০১৭, ২০১৯ ও ২০২১ সালে ইতিমধ্যেই তিনটি অত্যাধুনিক সাবমেরিন যুক্ত হয়েছে।

চলতি বছরেই চতুর্থ সাবমেরিন হিসেবে নৌসেনার অন্তর্ভুক্ত হল আইএনএস-ভেলা। আইএনএস- ভাগি নামে আরও একটি সাবমেরিন নির্মাণের কাজ প্রায় শেষ হয়ে এসেছে। মনে করা হচ্ছে, চলতি বছরের শেষে অথবা আগামী বছরের শুরুতেই ওই সাবমেরিনটিও নৌ বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হবে।

- Advertisement -

Video News

Top News Headlines

Latest Posts

Don't Miss