Farm Law: সংসদ অভিযান আপাতত স্থগিত রাখল কিষান মোর্চা, তবে সন্দেহ কাটেনি

290
Kisan organizations

New Delhi: শেষ পর্যন্ত ‘সংসদ চলো’ অভিযান আপাতত স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিল সংযুক্ত কিষান মোর্চা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তিন কৃষি আইন (Farm Law) বাতিল করার কথা ঘোষণা করেছিলেন। যদিও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার উপর ভরসা রাখতে পারেননি কৃষক সংগঠনগুলি।

বুধবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠকে তিন কৃষি আইন বাতিলের সিদ্ধান্ত অনুমোদিত হয়। সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ জোশী জানিয়েছেন, ২৯ নভেম্বর শীতকালীন অধিবেশনের প্রথম দিনেই তিন কৃষি আইন প্রত্যাহার করার জন্য একটি বিল আনা হবে। এরপরই অধিবেশন শুরুর প্রথম দিন সংসদ ভবন অভিযান স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিলেন কৃষক নেতারা।

কৃষি আইন বাতিলের এই সিদ্ধান্তকে কৃষক সংগঠনগুলি নিজেদের আংশিক সাফল্য বলে মনে করছে। কারণ তাদের আরও কিছু দাবিদাওয়া রয়েছে। সেগুলি সরকার যতক্ষণ না মেটাচ্ছে ততক্ষণ তারা আন্দোলন থেকে সরবে না বলেও জানিয়েছে।

সংযুক্ত কিষান মোর্চার নেতা দর্শন পাল সিং শনিবার সন্ধ্যায় বলেন, ২৯ নভেম্বর কৃষকরা যে ‘সংসদ চলো’ অভিযানের ডাক দিয়েছিল তা আপাতত স্থগিত রাখা হচ্ছে। কারণ সরকার আশ্বাস দিয়েছে ২৯ তারিখেই সংসদে কৃষি আইন বাতিল করা হবে।

শনিবার দুপুরে সংযুক্ত কিষান মোর্চার নেতৃত্ব তাঁদের আন্দোলনের পরবর্তী রূপরেখা ঠিক করতে বৈঠকে বসেছিলেন। সেই বৈঠকেই সংসদ অভিযান বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। দর্শন পাল আরও জানিয়েছেন, তাঁরা প্রধানমন্ত্রীকে একটি চিঠি দিয়েছেন। ওই চিঠিতে তাঁরা গত এক বছরে কৃষকের বিরুদ্ধে যে সমস্ত মামলা দায়ের হয়েছে সেগুলি প্রত্যাহার করার কথা বলেছেন। ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য নিশ্চিত করার জন্য আইন আনতে অনুরোধ করেছেন। বিক্ষোভ চলাকালে সমস্ত কৃষক মারা গিয়েছেন তাঁদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আর্জি জানিয়েছেন। বিদ্যুৎ বিল বাতিল এবং ফসলের গোড়া পোড়ানোর জন্য কৃষকদের বিরুদ্ধে যে সমস্ত মামলা হয়েছে সেগুলিও বাতিল করার আর্জি জানিয়েছেন।

তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে বিভিন্ন দাবিদাওয়া সম্বলিত ওই চিঠির জবাবের জন্য তাঁরা ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন। সরকার যদি তাঁদের আবেদনগুলির বিষয়ে নীরব থাকে তবে তাঁরা ফের নতুন করে আন্দোলন শুরু করবেন।

সোমবার শুরু হচ্ছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন। অধিবেশনের প্রথম দিনেই কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর কৃষি আইন প্রত্যাহারের জন্য একটি বিল পেশ করবেন। এই বিল নিয়ে সংসদের উভয় কক্ষে আলোচনার পর তা পাস করা হবে। গুরুত্বপূর্ণ এই বিল নিয়ে আলোচনায় যাতে দলের প্রত্যেক সাংসদ উপস্থিত থাকেন সেজন্য শাসক দল বিজেপি এবং বিরোধী দল কংগ্রেস হুইপ জারি করেছে।

রাজনৈতিক মহল মনে করছে, প্রবল কৃষক আন্দোলনের চাপে শেষ পর্যন্ত সরকারকে পিছু হটতে বাধ্য হতে হয়েছে।