""
Sunday, October 2, 2022
Homeদেশের দশদিকPrivatization: আরও দুটি রাষ্ট্রয়ত্ত ব্যাংক বেসরকারি হাতে

Latest Posts

Privatization: আরও দুটি রাষ্ট্রয়ত্ত ব্যাংক বেসরকারি হাতে

- Advertisement -

নিউজ ডেস্ক, নয়াদিল্লি: ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাহবে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন (nirmala sitaraman) ঘোষণা করেছিলেন, দু’টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংককে (nationalised bank) বেসরকারি (Privatization) হাতে তুলে দেওয়া হবে। এই দু’টি রাষ্ট্রয়ত্ত ব্যাংক বেসরকারীকরণ করে সরকারের ঘরে আসবে এক লক্ষ ৭৫ হাজার কোটি টাকা। দু’টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়ার জন্য সংসদের আসন্ন শীতকালীন অধিবেশনে (winter season) বিল আনা হচ্ছে। আগামী সোমবার ( monday) ২৯ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন।

জানা গিয়েছে, দু’টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক বেসরকারিকরণের জন্য ব্যাংকিং কোম্পানিস আইন ১৯৭০ ও ১৯৮০ এবং ব্যাংকিং রেগুলেশন অ্যাক্ট ১৯৪৯ সংশোধন করতে হবে। সে কারণেই সংসদে বিল আনা হচ্ছে। রাষ্ট্রয়ত্ত ব্যাংকের বেসরকারিকরণের এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেছে প্রায় সব রাজনৈতিক দল। পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যাংক এমপ্লয়িজ ইউনিয়নও মোদি সরকারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে পথে নামার হুমকি দিয়েছে। আর্থিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, দেশের অর্থনীতির বেহাল পরিস্থিতির কারণে সরকারের আয়ের পথ অত্যন্ত সংকুচিত হয়েছে। ফলে দেশের আর্থিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়ার মুখে। তাই সরকার আয় বাড়াতে এভাবে লাভজনক সংস্থাকেও বেসরকারিকরণ করতে চাইছে।

- Advertisement -

nirmala sitaraman

এবারের শীতকালীন অধিবেশনে পেনশন ফান্ড রেগুলেটরি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (সংশোধনী) বিল ২০২১ পেশ করা হবে। চলতি আইন সংশোধন করতেই এই বিল পেশ করা হবে। এই সংশোধনীর মাধ্যমে পেনশন ফান্ড রেগুলেটরি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অথরিটি থেকে ন্যাশনাল পেনশন সিস্টেম ট্রাস্টকে আলাদা করা সম্ভব হবে। অর্থমন্ত্রী সীতারমন তাঁর বাজেট প্রস্তাবে ইউনিভার্সাল পেনশন কভারেজের কথা ঘোষণা করেছিলেন। নতুন বিল এনে সেই ঘোষণাকেই বাস্তবে রূপদান করতে চায় কেন্দ্র।

উল্লেখ্য, দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতা দখলের পর নরেন্দ্র মোদি সরকার রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলি বেসরকারিকরণের উপর বিশেষ জোর দিচ্ছে। যদিও কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ এসেছে বিভিন্ন মহল থেকে। কিন্তু মোদি সরকার কোন কথাতেই কর্ণপাত করেনি। সম্প্রতি রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়াকেও টাটা গোষ্ঠীর হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এয়ার ইন্ডিয়ার বিলগ্নিকরণ করে মোদি সরকারের ঘরে এসেছে ১৮ হাজার কোটি টাকা। যদিও আর্থিক বিশেষজ্ঞরা অনেকেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, মোদি সরকার যেভাবে লাভজনক সংস্থাগুলিকে বেসরকারি হাতে তুলে দিচ্ছে তা যথেষ্ট উদ্বেগের। আগামী দিনে এর জন্য গোটা দেশকে মাসুল চোকাতে হতে পারে।

- Advertisement -

Video News

Top News Headlines

Latest Posts

Don't Miss