10.4 C
London
Monday, November 28, 2022
Homeশিল্পেই বিপ্লব: তালিবানদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে কাবুলের গ্রাফিতি শিল্পী শামসিয়া হাসানি

Latest Posts

শিল্পেই বিপ্লব: তালিবানদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে কাবুলের গ্রাফিতি শিল্পী শামসিয়া হাসানি

২০১২ সালের ৯ অক্টোবর। দুই বন্ধুর সঙ্গে পরীক্ষা দিয়ে ফেরার পথে মাথায় গুলি করা হয়েছিল মালালা ইউসুফজাইকে। মালালা ছিলেন দেশের মহিলাদের সুরক্ষা, শিক্ষা নিয়ে সোচ্চারে কথা বলা একজন। সেকারণেই বছর পনেরোর মালালাকে সরানোর চেষ্টা চালিয়েছিল তেহরিক-ই-তালিবানের পাকিস্তানি শাখা। প্রত্যেকটি ইভেন্টে তাঁর বক্তব্যে শোনা যায় ধর্মান্ধতা, কুসংস্কারতা, হিংস্রতার (পড়ুন 'তালিবান'দের) কবলে পড়লে মহিলাদের কি অবস্থা হয়। শামসিয়ার ছবি যেন মালালার বক্তব্যগুলিরই শৈল্পিকরুপ।

- Advertisement -

অনুভব খাসনবীশ: গোটা আফগানিস্তান তালিবানদের দখলে। দেশে তালিবানিরাজ কায়েম করেছে। তা সত্ত্বেও এখনও এমন অনেক এলাকা আছে, যেখানে মানুষ এই ভয়ঙ্কর জঙ্গি সংগঠনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের পতাকা তুলছে। তার মধ্যে অন্যতম হল নর্দান অ্যালায়েন্সের প্রাক্তন কমান্ডার আহমেদ শাহ মাসুদের শক্ত ঘাঁটি পঞ্জশির উপত্যকা। পঞ্জশিরের পর তালিবানের শক্ত ঘাঁটি হিসাবে পরিচিত জালালাবাদেও শোনা গিয়েছে প্রতিরোধের সুর। সেই প্রতিরোধের মুখ হয়ে উঠেছেন মহিলারা। শুধু মহিলারাই নন, জালালাবাদে বুধবার সকালেই আফগানিস্তানের জাতীয় পতাকা হাতে প্রতিবাদ জানাতে রাস্তায় নামে সাধারণ মানুষ।

আরও পড়ুন মধ্যমেধা নাকি গবেষণার অভাব? ওয়েব সিরিজে জেলা পুলিশ কমিশনার পদ সৃষ্টি করলেন অঞ্জন দত্ত

- Advertisement -

এছাড়াও গত কয়েকদিন ধরেই দেখা গিয়েছে বীরত্বের টুকরো টুকরো ছবিও। তালিবানি ফতোয়া উপেক্ষা করে মহিলা অ্যাঙ্করকে দিয়ে প্রাইম-টাইম শো শুরু করেছে আফগানি নিউজ চ্যানেল। রাজপথে দাড়িয়ে তালিবানি বন্দুকধারীদের প্রশ্ন করেছে মহিলা সাংবাদিকরা। যেখানে গত কয়েকদিন ধরেই মহিলাদের অন্ধকূপে ঠেলে দেওয়ার মতো একাধিক ফতোয়া জারি করেছে তালিবানি সরকার, সেখানে এই কয়েক টুকরো ছবিই হয়ে উঠেছে ‘বেয়নেটের ডগায় ফুলের’ মতো তাৎপর্যপূর্ণ।

শামসিয়া হাসানি, আফগানিস্তানের প্রথম মহিলা গ্রাফিতি শিল্পী।

এবার সেই দলেই যুক্ত হলেন শামসিয়া হাসানি। ২১ বছরের এই তরুণী কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের ছাত্রী। তাঁর আরও একটি পরিচয় রয়েছে, তিনি আফগানিস্তানের প্রথম মহিলা গ্রাফিতি শিল্পী। অবশ্য ‘যুক্ত হলেন’ কথাটা এক্ষেত্রে কতটা খাটবে তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। কারণ বহুদিন ধরেই নিজের গ্রাফিতিতে, ডিজাইনে, ছবিতে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন এই তরুণী। তাঁর সৃষ্টিতে ফুঁটে উঠছে আফগানিস্তানের মহিলা সুরক্ষা, তাদের জীবন, তালিবানিরাজ প্রভৃতি বিষয়। তালিবানিরাজ কায়েম হওয়ার পর থেকেই আফগানভূমে বিপন্ন হয়ে পড়েছিল শিল্প-সংস্কৃতি। সেখানে ‘প্রথম মহিলা গ্রাফিতি শিল্পী হয়ে যিনি এই বেড়াজাল ভেঙেছেন, তিনি তালিবানি ফতোয়ার পরোয়া করবেনই বা কেন?

পিয়ানো হাতে দাঁড়িয়ে এক আফগান কিশোরী, পেছনে সশস্ত্র তালিবানদের দল।
বন্দুক হাতে উদ্যত তালিবানের সামনে ফুল হাতে দাঁড়িয়ে এক কিশোরী।
আফগান কিশোরীর হাতের ফুলের টব ফেলে দিয়েছে বন্দুকধারী তালিবান।

সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা শামসিয়ার প্রতিটি ছবি দেখলেই বোঝা যায় তাঁর অর্থ। আপাতদৃষ্টিতে প্রায় প্রত্যেকেরই সেই অর্থ বোধগম্য হলেও তার গভীরতা অতল। তাঁর ছবির কোনওটিতে এক আফগান কিশোরীর হাতের ফুলের টব ফেলে দিয়েছে বন্দুকধারী তালিবান, কোনওটিতে পিয়ানো আঁকড়ে ধরে থাকা কিশোরীকে ঘিরে ধরেছে হিংস্র তালিবানদের দল। প্রত্যেকটি ছবিই যেন বলছেন বন্দুকের সামনে, হিংস্রতার সামনে হেরে যাচ্ছে শিল্প, সংস্কৃতি, স্বাধীনতা। পরক্ষনেই তিনি আঁকছেন হাতে ফুল নিয়ে কামানদাগা গাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে এক তরুণী। যেন তালিবানি বন্দুকবাজদের চোখে চোখ রেখে প্রশ্ন করছেন নির্ভীক তরুণীরা।

আরও পড়ুন পঞ্জশিরের পর জালালাবাদ, বাড়ছে তালিবানদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের সুর

২০১২ সালের ৯ অক্টোবর। দুই বন্ধুর সঙ্গে পরীক্ষা দিয়ে ফেরার পথে মাথায় গুলি করা হয়েছিল মালাল ইউসুফজাইকে। মালালা ছিলেন দেশের মহিলাদের সুরক্ষা, শিক্ষা নিয়ে সোচ্চারে কথা বলা একজন। সেকারণেই বছর পনেরোর মালালাকে সরানোর চেষ্টা চালিয়েছিল তেহরিক-ই-তালিবানের পাকিস্তানি শাখা। বেঁচে ফেরার পর মালালা হয়ে ওঠেন ইয়ুথ আইকন, পান ‘নোবেল পিস প্রাইজ’ও। প্রত্যেকটি ইভেন্টে তাঁর বক্তব্যে শোনা যায় ধর্মান্ধতা, কুসংস্কারতা, হিংস্রতার (পড়ুন ‘তালিবান’দের) কবলে পড়লে মহিলাদের কি অবস্থা হয়। শামসিয়ার ছবি যেন মালালার বক্তব্যগুলিরই শৈল্পিকরুপ।

হাতে ফুল নিয়ে কামানদাগা গাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে এক তরুণী।
যুদ্ধ-বিমানের সামনে কাগজের প্লেন ওড়াচ্ছে এক আফগান কিশোরী।

শামসিয়া অন্যান্য কিছু সিরিজের ছবিগুলি ভালো করে লক্ষ্য করলে দেখা মিলবে আরেকটি জিনিসের। হিংস্রতা, ধর্মান্ধতা, যন্ত্রনার বিপরীতে যা অনেক বেশি শক্তিশালী, ‘আশা’। শামসিরার ছবিতে দেখা মিলবে যুদ্ধ বিমানের সামনেও কাগজের প্লেন (স্বাধীনতা, আনন্দ, আবেগের প্রতীক) ওড়াচ্ছে এক কিশোরী। মালালার মতো তিনিই দিনের শেষে দেখেন স্বাধীন, সন্ত্রাসমুক্ত আফগানিস্তানের ছবি। যেই ছবি তালিবানদের কবলে না পড়ে, আফগানিস্তানের বাসিন্দা না হয়ে, রবি ঠাকুরের কাবুলিওয়ালার গল্পে-ছবিতে সে দেশকে চিনে আপনি, আমি প্রত্যেকে দেখছি, দেখার চেষ্টা করছি।

- Advertisement -

Video News

Top News Headlines

Latest Posts

Don't Miss