4 C
London
Friday, January 27, 2023
HomeঅফবিটOMG! চিনা কারখানায় সপ্তাহে ২০ মিলিয়ন মশা উৎপাদন করা হচ্ছে

Latest Posts

OMG! চিনা কারখানায় সপ্তাহে ২০ মিলিয়ন মশা উৎপাদন করা হচ্ছে

- Advertisement -

অনলাইন ডেস্ক: আজব কাণ্ডের শীর্ষে চিন৷ তার আরও একটা উদাহরণ পাওয়া গেল৷ ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গুসহ নানা রোগের বাহক এই মশা মারতে বিশ্বজুড়েই নানা উপায় অবলম্বন করা হয়৷ ঠিক তার উলটো পথে হেঁটে মশা উৎপাদন করছে চিন৷

চিনের একটি কারখানায় প্রতি সপ্তাহে ২০ মিলিয়ন ভালো মশা (Good Mosquito) তৈরি করে। এই মশাগুলো তারপর জঙ্গলসহ অন্যান্য জায়গায় ছেড়ে দেওয়া হয়৷ এই মশার কাজ হল অন্যান্য মশার সঙ্গে যুদ্ধ করে রোগ প্রতিরোধ করা।

- Advertisement -

মশা সারাবিশ্বে প্রতি বছর অনেক মারাত্মক রোগ সৃষ্টি করে৷ মশার কারণে লক্ষ লক্ষ মানুষ মারা যায়। আজকাল ডেঙ্গু রোগ মশার কারণে সারা দেশে মানুষকে হত্যা করছে। চিন মশা নির্মূলে একটি চমৎকার কাজ করেছে। কিন্তু চিনের একটি কারখানায় এমন ভালো মশার উৎপাদন শুরু করেছেন, যা রোগ ছড়ানো মশাকে বিনাশ করে।

নিশ্চয় জানতে ইচ্ছে করছে, এই ভালো মশাগুলো কী? প্রকৃতপক্ষে এই ভাল মশা তাদের নিজস্ব উপায়ে রোগ বহনকারী মশার বৃদ্ধি বন্ধ করে। একটি গবেষণার পর চিন এই কাজ শুরু করেছে।

চিনের দক্ষিণাঞ্চলের গুয়াংজুতে এই কারখানা রয়েছে৷ যারা এই ভালো মশা উৎপাদন করে। প্রতি সপ্তাহে প্রায় দুই কোটি মশা উৎপন্ন হয়। এই মশাগুলি আসলে উলবাচিয়া ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রামিত হয়৷

এর আগে চিনে সান ইয়েট সেট ইউনিভার্সিটি এবং মিশিগান ইউনিভার্সিটির একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, ওলবাচিয়া ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত মশা তৈরি করা হয়, তাহলে তারা মহিলা মশাকে যথেষ্ট পরিমাণে বন্ধ্যাত্ব করে তুলতে পারে৷ কারণ এই স্ত্রী মশা রোগকে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দিতে পারে। এই কারণে ভালো মশার উৎপাদন শুরু হয়েছিল৷ এই ভাল মশাগুলিকে ওলবাচিয়া মশা বলা হয়।

প্রথমে তারা গুয়াংজুতে কারখানায় ভালো মশার প্রজনন করে। তারপর এটি জঙ্গলে এবং এমন জায়গায় ছেড়ে দেওয়া হয়, যেখানে মশার আধিক্য রয়েছে। কারখানা-বংশোদ্ভূত মশা স্ত্রী মশার সঙ্গে মিশে তাদের প্রজজন ক্ষমতাকে নষ্ট করে। তারপর সেই এলাকায় মশা কমতে শুরু করে এবং এর ফলে রোগ প্রতিরোধ হয়।

এই চিনা কারখানা যা মশা উৎপাদন করে তা বিশ্বের সবচেয়ে বড়। এটি ৩৫০০ বর্গ মিটারে বিস্তৃত। এখানে ৪টি বড় কর্মশালা রয়েছে। প্রতিটি কর্মশালায় প্রতি সপ্তাহে প্রায় ৫ মিলিয়ন মশা উৎপন্ন হয়।

আজ থেকে নয়, বরং চিন ২০১৫ সাল থেকে এটি করছে। আগে এই মশাগুলি শুধুমাত্র গুয়াংজু -এর জন্য প্রস্তুত করা হত৷ কারণ প্রতি বছর এখানে ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়ে। এখন এখানে মশা অনেকটা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে৷ তাই রোগও নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। এখন এই কারখানা থেকে মশা উৎপাদনের পর তাদেরকে চিনের অন্যান্য এলাকায়ও পাঠানো হচ্ছে।

এই কারখানা-বংশোদ্ভূত মশাগুলি প্রচুর শব্দ করে৷ কিন্তু তারা একটি নির্দিষ্ট সময়ের পরে মারা যায়। তাদের থেকে কোনও ভাবেই রোগ ছড়ানোর আশঙ্কা নেই।

কারখানায় জন্ম নেওয়া সমস্ত মশা পুরুষ। ল্যাবে এসব মশার জিন পরিবর্তন করা হয়৷ চিনের এই প্রকল্প এতটাই সফল হয়েছে, ব্রাজিলে একই ধরনের কারখানা খুলতে যাচ্ছে চিন৷

চিনের এই পদ্ধতিতে প্রথম পরীক্ষায় অসাধারণ সাফল্য পেয়েছে। যে এলাকায় এই মশা ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল, সেখানে অল্প সময়ের মধ্যে মশাবাহিত রোগীর শতাংশ হ্রাস পেয়েছিল। যার পর চিন এটিকে ব্যাপকভাবে ব্যবহার শুরু করে।

- Advertisement -

Video News

Top News Headlines

Latest Posts

Don't Miss