""
Thursday, October 6, 2022
Homeস্পোর্টস-স্পটDiego Maradona: "ধর্ষণের" অভিযোগ প্রয়াত ফুটবল রাজপুত্রের বিরুদ্ধে

Latest Posts

Diego Maradona: “ধর্ষণের” অভিযোগ প্রয়াত ফুটবল রাজপুত্রের বিরুদ্ধে

- Advertisement -

Sports desk: বছর ৩৭ বয়সী একজন কিউবান মহিলা, যার ২০ বছর আগে নাবালিকা হিসেবে দিয়েগো মারাডোনার (Diego Maradona) সাথে সম্পর্ক ছিল, সোমবার প্রয়াত আর্জেন্টাইন আইডল এবং তার দলবলের বিরুদ্ধে হিংস্রতা ও অপব্যবহারের অভিযোগ এনেছেন। অভিযোগে ওই কিউবান মহিলা ধর্ষণ এবং তাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আটকে রাখার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ উঠে এসেছে ফুটবলের রাজপুত্র মারাডোনার বিরুদ্ধে৷

দিয়েগো মারাডোনার বিরুদ্ধে অভিযোগ মানব পাচার, স্বাধীনতার অধিকার বঞ্চিত করা, বলপূর্বক দাসত্ব, হামলা এবং হিংসাত্মক ঘটনা সম্পর্কিত।
অভিযোগকারী মহিলা মাভিস আলভারেজ রেগো বলেছেন যে ২৫ নভেম্বর তার মৃত্যুর প্রথম বার্ষিকীতে মারাডোনা সম্পর্কে একটি টিভি সিরিজে যে গল্পগুলি বলা হয়েছিল তার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য তিনি এত বছর নীরবতা ভেঙে অভিযোগ নিয়ে কথা বলছেন।

- Advertisement -

মাভিস আলভারেজ রেগো এখন মিয়ামিতে থাকেন, বুয়েনর্স আইরেসে সংবাদমাধ্যমে বলেছেন যে কীভাবে তিনি ১৬ বছর বয়সে মারাডোনার সাথে দেখা করেছিলেন যখন তিনি তারকা ফুটবলার। চল্লিশের দশকে, কিউবায় থাকতেন, যেখানে তিনি মাদকের চিকিৎসাধীন ছিলেন। অভিযোগকারী মহিলার বক্তব্য “আমি হতবাক হয়ে গিয়েছিলাম, তিনি আমাকে জিতেছিলেন… কিন্তু দুই মাস পরে সবকিছু বদলে যেতে শুরু করে”।

তিনি দাবি করেন যে, মারাডোনা যিনি এক বছর আগে ৬০ বছর বয়সে হার্ট অ্যাটাকে মারা গিয়েছেন, তিনিই তাকে কোকেন খাওয়ার দিকে ঠেলে দিয়েছিলেন। পালাক্রমে তাকে নির্ভরশীল করে তোলে মাদক সেবনের প্রতি।
অভিযোগকারি মহিলা আরও বলেছেন, “তাকে ভালোবাসতাম কিন্তু আমিও তাকে ঘৃণা করতাম, এমনকি আমি আত্মহত্যার কথাও ভেবেছিলাম।” মাভিস আলভারেজ রেগো যিনি এখন ১৫ এবং চার বছর বয়সী দুই সন্তানের মা তার দাবি, মারাডোনার সাথে তার সম্পর্ক “চার থেকে পাঁচ বছরের মধ্যে” স্থায়ী হয়েছিল কিন্তু তিনি নির্যাতনের শিকার হন।

তিনি দাবি করেন যে ২০০১ সালে মারাডোনার সাথে বুয়েনস আইরেসে ভ্রমণের সময়, মারাডোনার দল তাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কয়েক সপ্তাহ ধরে একটি হোটেলে আটকে রেখেছিল, একা বাইরে যেতে নিষেধ করেছিল এবং স্তন বৃদ্ধির অপারেশনে বাধ্য করা হয়েছিল।

তিনি আরও দাবি করেছেন যে মারাডোনা হাভানায় তাদের বাড়িতে একটি অনুষ্ঠানে তাকে “ধর্ষণ” করেছিলেন এবং শারীরিক হিংস্রতার আরও কয়েকটি ঘটনার কথা উল্লেখ করেছেন।

আলভারেজ রেগো নিজে কোনও অভিযোগ দায়ের করেননি। তবে এই সপ্তাহে বুয়েনর্স আইরেসে একটি আর্জেন্টিনার আইনজীবীর কাছে একটি আর্জেন্টিনার এনজিও মারফৎ আনা অভিযোগের বিষয়ে প্রমাণ তুলে দিয়েছেন৷ “শান্তির জন্য ফাউন্ডেশন” নামক সংস্থাটি সাম্প্রতিক সপ্তাহে আমেরিকান মিডিয়ায় তার স্বীকারোক্তি দেখার পরে অভিযোগ দায়ের করেছে।

নির্যাতিতা মহিলার বক্তব্য, “আমার যা করার ছিল আমি করেছি, বাকিটা আমি আদালতে ছেড়ে দিচ্ছি।” প্রয়াত কিংবদন্তী ফুটবলার মারাডোনার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা প্রসঙ্গে অভিযোগকারি আলভারেজ রেগোর স্পষ্ট দাবি, “আমি আমার লক্ষ্য অর্জন করেছি: আমার সাথে যা ঘটেছে তা বলার জন্য, অন্যদের সাথে ঘটতে বাধা দিতে বা অন্তত যাতে অন্য মেয়েরা কথা বলার শক্তি, সাহস অনুভব করে।”

মারাডোনার দলের পাঁচ সদস্য যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের তীর তারা সবাই নিজেদের আইনজীবীদের মাধ্যমে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। একজন এনজিওর বিরুদ্ধে কটূক্তির পাল্টা অভিযোগও করেছেন।

- Advertisement -

Video News

Top News Headlines

Latest Posts

Don't Miss