ফ্রান্স ও ব্রিটেনে একদিনে করোনা আক্রান্ত লক্ষাধিক, তীব্র আতঙ্ক

654
covid-19-who-alert-on-europe-and-asia

News Desk: করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময়ে যা দেখা যায়নি সেটাই দেখা গেল ওমিক্রনের দাপটে। ইউরোপের অন্যতম দেশ ফ্রান্সে একদিনে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৪ হাজার ৬১১ জন। যার মধ্যে অধিকাংশই ওমিক্রনের শিকার। ব্রিটেনেও একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ২০ হাজারের বেশি।

শীত পড়তেই ইউরোপ জুড়ে করোনার বাড়বাড়ন্ত । ধরা পড়ার কয়েকদিনের মধ্যেই বিশ্বের ১১০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই নতুন ভেরিয়েন্ট। ইতিমধ্যেই ইউরোপের বেশিরভাগ দেশে দাপট দেখাতে শুরু করেছে ওমিক্রন।
দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ইতিমধ্যেই জরুরি বৈঠকে বসেছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন। স্বাস্থ্য-সহ বিভিন্ন দফতরের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলা নিয়ে ইতিমধ্যেই বৈঠক করেছেন তিনি। পরিস্থিতির উপর সরকার কড়া নজর রাখছে বলেও ম্যাঁক্রো জানিয়েছেন। শেষ ২৪ ঘন্টায় ফ্রান্সে যতজন আক্রান্ত হয়েছেন তার অধিকাংশই ওমিক্রন আক্রান্ত বলে জানা গিয়েছে। ২৪ ঘন্টায় ফ্রান্সে মৃত্যু হয়েছে ৮৪ জনের।

করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর নিরিখে বিশ্বের প্রথম দশটি দেশের মধ্যে ফ্রান্স রয়েছে সাত নম্বরে। শুক্রবার ফ্রান্সে ৯৪১২৪ জনের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। মৃত্যু হয়েছিল ১৬৭ জনের। তুলনায় শনিবার মৃত্যুর সংখ্যা কিছুটা কমলেও আক্রান্ত সংখ্যা অনেকটাই বেড়েছে।

ইতিমধ্যেই গোটা ইউরোপে শুরু হয়েছে নববর্ষ বরণ উৎসব। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো সে দেশের প্রত্যেক মানুষকে ঘরে থেকে উৎসব পালনের ডাক দিয়েছেন।

শনিবার যিশুর জন্মদিন উপলক্ষে পোপ ফ্রান্সিস সকলকে দ্রুত টিকা দেওয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। ভ্যাটিকান সিটির ওই অনুষ্ঠানে পোপ বলেন, গরিব মানুষের প্রতি উদাসীন আচরণ ঈশ্বরকে অসন্তুষ্ট করে তুলেছে। শুধু ধনী দেশগুলিতেই ভ্যাকসিন দিলে যে গোটা বিশ্ব করোনার হাত থেকে মুক্তি পাবে না এটা আজ স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। মনে রাখতে হবে, প্রদীপের নিচেই থাকে অন্ধকার। তাই বিশ্বের প্রতিটি মানুষ যাতে টিকা পায় সেদিকে সবার আগে নজর দিতে হবে।

ব্রিটেনেও ওমিক্রন বড় মাপের ছাপ ফেলেছে। বরিস জনসনের দেশে একদিনে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ২০ হাজার মানুষ। যার মধ্যে বেশিরভাগই ওমিক্রন আক্রান্ত। ফলে ব্রিটেনেও করোনা নতুন করে আতঙ্ক ও উদ্বেগ ছড়াচ্ছে। ব্রিটেনে প্রতিদিনই আক্রান্তের নতুন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। একদিনে এক লাখ কুড়ি হাজারের বেশি মানুষের করোনা আক্রান্ত হওয়া এক নতুন রেকর্ড।

ব্রিটেনের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এটা হিমশৈলের চূড়া মাত্র। নববর্ষের উৎসব শেষ হলে এক ধাক্কায় আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়বে। ইতিমধ্যেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এক সতর্কবার্তায় জানিয়েছে, বেশ কয়েকটি দেশে করোনার গোষ্ঠী সংক্রমণ ছড়িয়েছে। তাই প্রতি দেশকেই আরও সতর্ক থাকতে হবে। অন্যথায় এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে গোটা বিশ্বকে।